পুত্রবধুকে ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনায় জরিমানার টাকা ভাগবাটোয়ারা

সলঙ্গায় পুত্রবধুকে ধর্ষনের চেষ্টাকারী সেই শ্বশুরের ২ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হলেও মাত্র ১ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা ভুক্তভোগীকেপ্রদান করে অবশিষ্ট ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা ভাগ বাটোয়ারা করে নিয়েছে গ্রাম্যপ্রধান মাতব্বররা। একই সঙ্গে পুত্রবধুকে তালাক, শ্বশুরকে গোসলকরিয়ে তওবা পড়ানো সহ পুরো গ্রামবাসীকে এক বেলা ভুড়িভোজ করানোর রায় দিয়েছেন গ্রাম্য প্রধান মাতব্বররাগন।

এ ছাড়াও সালিশী বৈঠক বসার পূর্বে বিভিন্ন কর্তা ব্যক্তিকে ম্যানেজ করার কথা বলে ৩০ হাজার এবং গ্রাম্য মেলার কথা বলে ৪০ হাজার টাকা নেওয়াহয়েছে। ইজ্জত হরনকারীর ইজ্জতের মুল্য হিসেবে নির্ধারিত জরিমানার টাকা এভাবে ভাগ বাটোয়ারা করে নেওয়াকে কেন্দ্র করে সলঙ্গার সর্বমহলেনানা সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে।

এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য জাতীয় মানবাধিকার কমিশনসহ প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে এলাকাবাসী। জানাগেছে,সিরাজগঞ্জের সলঙ্গা থানার সলঙ্গা ইউনিয়নের ভরমোহনী গ্রামের মনিরুজ্জামান মনির পুত্র নয়নের সাথে উল্লাপাড়া উপজেলার পাগলা গ্রামেরআইয়ুব আলীর কন্যার বিয়ে হয় প্রায় ৪ বছর আগে।

এদিকে বিয়ের পর থেকেই ঐ পুত্র বধুর শ্বশুর মনিরুজ্জামান মনি তাকে কুপ্রস্তাব দিয়ে আসতো। এরই এক পর্যায়ে গত রবিবার বিকাল ৩ ঘটিকারদিকে বশত বাড়ীতে কোন লোকজন না থাকার সুযোগে তাকে একা পেয়ে লম্পট শ্বশুর তার শয়ন ঘরে ঢুকে জোর পুর্বক ধর্ষনের চেষ্টা করে।

এ সময় লম্পট শ্বশুরের কবল থেকে ছুটে চিৎকার করতে করতে দৌড়ে গিয়ে চাচা শ্বশুর আব্দুল মান্নানের ঘরে আশ্রয় নেয় কিন্তু সেখানে গিয়েওলম্পট শ্বশুর মনিরুজ্জামান মনি আশ্রিত ঘরের দরজা ভেঙ্গে ঐ ভুক্তভুগীকে মারপিট করে ডান চোখে জখম করে এবং এ ঘটনা প্রকাশ করা হলেতাকে হত্যা করার হুমকি দেওয়া হয়।

পরে লোকজনের অপবাদ থেকে বাঁচার জন্য ঐ পুত্রবধু বিষ পান করে আতœহত্যার চেষ্টা করে। সংবাদ পেয়ে তার পিত্রালয়ের লোকজন এসে তাকেউদ্ধার করে মুমুর্ষ অবস্থায় সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতলে ভর্তি করে।

এ ঘটনা গ্রাম্য প্রধানের কাছে বিচার প্রার্থনা করা হলেও উল্টো তারা ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করে। ঘটনাটি দৈনিক স্থানীয় কয়েকটি পত্রিকায়প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে গ্রাম্যপ্রধান মাতব্বরদের টনক নড়ে। শুরু হয় নানা দিকে দৌড় ঝাঁপ। শেষ পর্যন্ত ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করাহলেও ধামাচাপা দিতে ব্যর্থ হয় প্রধানমাতব্বরগন।

ফলে তারা কোন উপায় অন্ত না পেয়ে গত বুধবার গভীর রাতে গ্রাম্য প্রধান মাতব্বরগন একই গ্রামের পশু চিকিৎসক কাওছারের বাড়ীতে সালিশীবৈঠক বসায়। গ্রাম্যপ্রধান মতিয়ার রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সালিশী বৈঠকে পুত্রবধুকে ধর্ষনের চেষ্টাকারী লম্পট শ্বশুর মনিরুজ্জামান মনির ২লাখ ৬০ হাজার টাকা প্রকাশ্যে জরিমানা, গোসল করিয়ে তওবা পড়ানো ও গ্রামবাসীকে এক বেলা ভুড়িভোজ করানোর রায় ঘোষনা করা হয়।

এদিকে সালিশী রায়ের ধার্যকৃত জরিমানার টাকার মধ্য থেকে ভুক্তভোগীকে ১ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা নগদ প্রদান করে তাকে তালাক দিয়ে বিদায় করেদেওয়া হয়েছে। অপর দিকে জরিমানার অবশিষ্ট ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা গ্রাম্যপ্রধান মতিয়ার রহমান, পশু চিকিৎসক কাওছার হোসেন, গোলামমোস্তফা, মিলন, হান্নান ও মান্নানসহ অন্যান্য মাতব্বরগন ভাগবাটোয়ারা করে নিয়েছেন। সেই সাথে গ্রাম্য মাতববর চক্রটি প্রশাসন সহ মিডিয়াকর্মীদের নাম ভাঙ্গীয়া মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।

অপরদিকে সালিশী বৈঠকটি ধামাপাচা দেওয়ার জন্য গ্রাম্যপ্রধান মতিয়ার রহমান ও গোলাম মোস্তফার নেতৃত্বে বিভিন্ন কর্তা ব্যক্তিকে ম্যানেজ করারজন্য ৩০ হাজার ও গ্রামে মেলা বসানোর নামে ৪০ হাজার টাকা নিয়েছে। এভাবে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে প্রায় ৫ লক্ষ টাকা লম্পট মনিরুজ্জামানেরনিকট থেকে হাতিয়ে নিয়ে ভাগবাটোয়ারা করে নিয়েছেন ওই মাতব্বর চক্রটি।

প্রধানমাতব্বরদের পকেটে থাকা জরিমানার টাকা উদ্ধার ও তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রশাসন সহ জাতীয় মানবিধিকারকমিশনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে এলাকাবাসী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *