৪৫০ বছর ধরে প্রতিদিন ২৪০০ কেজি মিস্টি পোলাও রান্না হয় আজমির শরিফ দরগায়! | পড়ুন বিস্তারিত ...

৪৫০ বছর ধরে প্রতিদিন ২৪০০ কেজি মিস্টি পোলাও রান্না হয় আজমির শরিফ দরগায়!

আজমির শরিফ দরগায় প্রতিদিনই ২৪০০ কেজি মিস্টি পোলাও রান্না করা হয়। এ রীতি চলছে গত সাড়ে চারশ বছর ধরে। আজমির শরিফের বর্তমান প্রধান সৈয়দ সালমান চিশতী টুইটারে এ তথ্য জানিয়েছেন। সম্প্রতি দিল্লিতে ওয়ার্ল্ড ইন্ডিয়া ফুড ইভেন্টে ৯১৮ কেজির খিচুড়ি রান্না করা হয়। এ ঘটনাটিকে গিনেজ বুকে স্থান দেয়ার দাবিও তোলা হয়। তবে সৈয়দ সালমান চিশতী দাবি করেন, ৫০ জন লোক এত অল্প খিচুড়ি রান্না করে বিশ্ব রেকর্ডের দাবি তোলা ভুল।

বিশ্ব রেকর্ডের দাবিদার কেউ হলে সেটা আজমির শরিফই। তবে গিনেস কর্তৃপক্ষের কাছে এখনই রেকর্ডের জন্য আবেদন করার কোনও পরিকল্পনা আজমির শরিফের নেই। ভারতের একটি সংবাদ মাধ্যমকে সালমান চিশতী বলেন, আমরা হলাম সুফি মতাবলম্বী। প্রচারের আলোয় আমরা থাকতে চাই না কখনই। তবে এটাও ঠিক, শত শত বছর ধরে এই দরগায় যে রোজ বিপুল পরিমাণ রান্নাবান্না হচ্ছে তারও একটা স্বীকৃতি দরকার।

ইমরান খান ও এরদোগানই হচ্ছেন সত্যিকারের নেতা : বুশরা ইমরান

ডিভোর্সে অনড় ক্রিকেটার মোসাদ্দেক, সিদ্ধান্তহীনতায় স্ত্রী উষা

রোজ ঘুম থেকে উঠে যা করলে দ্রুত ফর্সা ও আকর্ষণীয় হবেন

এই সেই গৃহবধু যার ফেসবুকে ৯ লক্ষেরও বেশি ফলোয়ার আছে:: তিনি নামকরা কোনো সেলিব্রেটি নন। সিনেমার পর্দায় বা টেলিভিশন সিরিয়ালে দেখা যায় না তাকে। রাজনীতির ময়দানে বা কোনো সামাজিক আন্দোলনের শরিক নন তিনি। ফেসবুকের পাতায় কখনও স্বল্পবসনা রূপেও দেখা যায় না তাকে! অথচ, সেই ফেসবুকেই তার ফলোয়ারের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৯ লক্ষেরও বেশি!

কেবল তাই নয়, তার যে কোনো পোস্ট আপডেট হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাতে গড়ে ‘লাইক’ পড়ে হাজার পাঁচেকের কাছাকাছি। এই প্রায় অবিশ্বাস্য ফলোয়ার সংখ্যার জন্য সোশ্যাল মিডিয়ায় এখন রীতিমতো আলোচনায় দিল্লির এই আটপৌরে গৃহবধূ কিরণ যাদব। কেন ফেসবুকে কিরণের জনপ্রিয়তা দিনকে দিন বাড়ছে তার কারণ অনুসন্ধান করছেন অনেকেই। কারও মতে, কিরণ যা লেখেন তাতেই তিনি ‘একাত্ম’ হয়ে পড়েন। বিষয়টি কি আসলেই তাই?

দেখা গেছে, কিরণের পোস্টগুলোর বিষয়বস্তুতে সবসময় উঠে আসে সাধারণ মানুষের দুর্দশার কথা। প্রায় সব সময়ই ‘রাজনীতি ব্যবসায়ী’দের তুলোধোনা করেন কিরণ। সব ধরনের সাম্প্রতিক বিষয়েই মন্তব্য করেন তিনি। তা সে মায়াবতীর পদত্যাগই হোক বা অমরনাথে শিবলিঙ্গের আসল রহস্য! কখনও বা নিজের ছুটি কাটানোর গল্পও উঠে এসেছে তার পোস্টে। আর তার সব পোস্টই হিন্দিতে। ভাষার প্রয়োগ বেশ কঠিন।

কি আছে এই বাজার তালিকায় যা ফেসবুকে ভাইরাল

ছোট ছোট যে অভ্যাসের কারণে গোপনাঙ্গ ছোট হয়, বলছে গবেষকরা; ছেলেরা…

দিনে ২০ জন পুরুষের বিছানায় যেতে হয় মেয়েটিকে! অত:পর…

তবু মুহূর্তের মধ্যেই তা শেয়ার হচ্ছে, তাতে লাইক পড়ছে হাজার হাজার। ২০১৪ সালের মার্চে এই ফেসবুক অ্যাকাউন্টটি খুলেছিলেন কিরণ। বিহারের বৈশালী শহরের কিরণ আপাতত দিল্লিতে থাকেন। পড়াশোনা করেছেন বিহারেই। এক সময় চাকরিও করেছেন একটি বেসরকারি সংস্থায়। এখন নাকি তেমন কিছু করছেন না। আছেন ফেসবুক নিয়েই। মাত্র ৩ বছরেই তার ফেসবুক ফলোয়ারের সংখ্যা বেড়েছে অবিশ্বাস্য গতিতে!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*